এইচডিআর টিভি হাই ডাইন্যামিক রেঞ্জ টিভি

প্রযুক্তির জটিল টার্মগুলো কি আপনাকে বিভ্রান্ত করছে? কিছুতেই কি আপনার মস্তিষ্কে পাল্লা পড়ছে না? তাহলে বন্ধু, আপনি এবার সঠিক জায়গায় এসেছেন—কেনোনা এখানে আমি প্রযুক্তির সকল জটিল বিষয় গুলো ভাঙ্গিয়ে সহজ পানির মতো উপস্থাপন করার চেষ্টা করি, যাতে সকলে সহজেই সকল টেক টার্ম গুলো বুঝতে পারে।

ইতো মাত্র কয়েকদিনই হয়েছে, এইচডি টিভি আর ৪কে টিভি গুলো বাজারে জনপ্রিয়তা পেতে আরম্ভ করেছে—কিন্তু ইতিমধ্যেই আরেক নতুন টিভি টেকনোলজি বেশ সাড়া জাগাতে আরম্ভ করে দিয়েছে। এইবার এই টেকনোলজির নাম এইচডিআর টিভি (HDR TV) বা হাই ডাইন্যামিক রেঞ্জ টিভি (High Dynamic Range TV)। আপনার যদি ডিজিটাল ফটোগ্রাফি সম্পর্কে ভালো ধারণা থাকে অথবা কমপক্ষে আপনার কাছে যদি একটি লেটেস্ট স্মার্টফোন থাকে, তো তার ক্যামেরা সেটিং এ নিশ্চয় এইচডিআর ফটোগ্রাফি অপশনটি দেখে থাকবেন। ফটোগ্রাফিতে এইচডিআর টার্মটির অর্থ হচ্ছে ; একই ইমেজের বেশকিছু আলাদা এক্সপোজারে শট নেওয়া হয় এবং সকল ইমেজ গুলোকে একত্রিত করে গ্রেট রেঞ্জের ইমেজ জেনারেট করা হয়।

কিন্তু টিভি’র ক্ষেত্রে এইচডিআর টার্মটি একটু আলাদা; এখানে এইচডিআর মুডে ভিডিও ক্যাপচার করার পড়ে সেটা যখন এইচডিআর এনাবল টিভিতে প্লে করা হয়, পিকচার আগের থেকে অনেক প্রশস্ত রেঞ্জে উজ্জ্বল দেখতে পাওয়া যায়। আপনি আরোবেশি উজ্জ্বল সাদা রঙ এবং গভীর কালো অনুভব করতে পারবেন সাথে আপনি প্রত্যেকটি কালারের আরোবেশি শেড দেখতে পাবেন, বিশেষ করে কালোর দিকে অনেক পার্থক্য বুঝতে পারবেন।

এইচডিআর টিভি

এইচডিআর টিভি

কিছুক্ষণ এইচডিআর টিভি’তে পিকচার দেখার পরে আপনি সহজেই উপলব্ধি করতে পারবেন এখানে অবশ্যই পিকচার কোয়ালিটিতে প্রচণ্ড উন্নতি আনা হয়েছে। পিকচার গুলো আরোবেশি ব্যস্তবময় এবং জীবন্ত মনে হবে। ভিডিও ইমেজের আরোবেশি বর্ণনা আপনি স্ক্রীনে লক্ষ্য করতে পারবেন। আমরা মনে করি শুধু রেজুলেসন বাড়ালেই পিকচার কোয়ালিটি বেশি পাওয়া সম্ভব। কিন্তু এইচডিআর টিভি এমন এক টেকনোলজি, যেখানে বর্তমান রেজুলেসনেই পিকচারে আরোবেশি ডিটেইলস দেখতে পাবেন। পিকচারে আরোবেশি কালার এবং ব্রাইটনেস লেভেল থেকে আপনার মনে হবে, আপনি বোধ হয় টিভিতে দেখানো সিনের মধ্যেই ঢুকে রয়েছেন। আপনি হয়তো কোয়ালিটির জন্য এইচডি থেকে ৪কে’তে যেতে চাচ্ছেন, কিন্তু আমি বলবো রিয়াল কোয়ালিটি পেতে চাইলে, বিশেষ করে মুভি দেখার সময়, তো অবশ্যই ৪কে সাথে এইচডিআর বেস্ট চয়েজ হবে।

কন্ট্র্যাস্টকে সর্ব উজ্জ্বল সাদা এবং গভীর কালো এই দুই রেঞ্জের মধ্যে মাপা হয়ে থাকে। এই উজ্জ্বলতা পরিমাপের একক’কে নিট (Nit) বলা হয়। আদর্শ ব্ল্যাক কালার প্রদর্শিত করতে অবশ্যই নিট জিরো হতে হবে, যেটা বর্তমানে শুধু ওলেড ডিসপ্লে’তে সম্ভব—কেনোনা ব্ল্যাক প্রদর্শিত করানোর জন্য ওলেড ডিসপ্লের পিক্সেল লাইট অফ করে দেওয়া হয়, সুতরাং সেখানে সম্পূর্ণ ব্ল্যাক দেখতে পাওয়া যায়, মানে নিট জিরো। যদি কথা বলা হয় সর্বউচ্চ নিট নিয়ে, সেটা আরেক কাহিনী। স্ট্যান্ডার্ড এইচডিআর টিভি গুলো ৩০০ থেকে ৫০০ পর্যন্ত নিট জেনারেট করতে পারে, কিন্তু কিছু হাই ডাইন্যামিক রেঞ্জ টিভি আরো আরো বেশি নিট জেনারেট করতে পারে।

এইচডিআরেরও কিন্তু বিভিন্ন ফরম্যাট রয়েছে। বর্তমানের ব্যবহৃত ফরম্যাট হচ্ছে এইচডিআর১০ (HDR10) এবং ডলবি ভিশন এইচডিআর (Dolby Vision HDR)। ডলবিই প্রথম এইচডিআর টিভি’তে ৪,০০০ নিট ব্রাইটনেস দেখাতে সক্ষম হয়। সত্যি কথা বলতে,  ডলবি ভিশনই হচ্ছে আসল এইচডিআর ফরম্যাট, যেটা ট্রু এইচডিআর পারফর্মেন্স দিতে সক্ষম। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে সকল টিভি প্রস্তুতকারী কোম্পানিদের পক্ষে ডলবি’র রুল মেনে কাজ করা সম্ভব নয়, সাথে সকল টিভি প্রস্তুতকারী কোম্পানিদের ডলবি’র লাইসেন্স ফী বহন করাও সম্ভব নয়, তাই টিভি প্রস্তুতকারী কোম্পানিরা অল্টার্নেটিভ কিছু ব্যবহার করতে চায়, যাদের ডলবি পছন্দ নয়। বড় বড় টিভি প্রস্তুতকারী কোম্পানি যেমন- এলজি, স্যামসাং, সার্প, সনি, এবং ভিজিও একটি ওপেন স্ট্যান্ডার্ড এইচডিআর১০ ফরম্যাটের সাথে কাজ করে। এইচডি১০ এই পর্যন্ত ১,০০০ নিট পর্যন্ত ব্রাইটনেস দেখাতে সক্ষম হয়েছে।

এখানে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে, ডলবি ভিশন অবশ্যই এখানে বিজয়ী, কিন্তু ডলবি ভিশন সেইভাবে জনপ্রিয় নয়, যেভাবে এইচডি১০ জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। আজকের বেশিরভাগ এইচডিআর টিভি’তে এইচডিআর১০ স্ট্যান্ডার্ড ব্যবহার করা হয়, মাত্র কয়েকটা মডেলের টিভি’তে আজকের দিনে ডলবি ভিশন দেখতে পাওয়া যায়। এইচডিআর১০ বর্তমানে ১০বিট কালার গভীরতা ব্যবহার করে, যেখানে ডলবি ভিশন ১২বিট কালার ব্যবহার করে। যতোবেশি বিট কালার হবে, ততোবেশি আলাদা কালার দেখানো সম্ভব হবে। যদিও দুই স্ট্যান্ডার্ডেরই কালার জেনারেট অনেকটা একই, কিন্তু পার্থক্য রয়েছে, আর সেই পার্থক্য খুঁজে পাওয়া একটু মুশকিলের কাজ। উভয় স্ট্যান্ডার্ডই এইচডিএমআই ক্যাবল দিয়ে ভিডিও সিগন্যাল গ্রহন করে এবং মেটাডাটা থেকে বুঝতে পারে কি টাইপের কালার প্রদর্শিত করাতে হবে।

ডলবি ভিশন এইচডিআর

যদিও আজকের সবচাইতে জনপ্রিয় স্ট্যান্ডার্ডটি হচ্ছে এইচডিআর১০, কিন্তু ডলবি ভিশনে আরোবেশি সুবিধা পাওয়া সম্ভব, এবং নিঃসন্দেহে ডলবি ভিশনই হবে ফিউচার স্ট্যান্ডার্ড। উপরেই আলোচনা করেছি, ডলবি ভিশনে ১২বিট কালার গভিরতা রয়েছে এবং ডলবি ভিশনের ব্রাইটনেস লেভেল এইচডিআর১০ থেকে অনেক বেশি। বর্তমানে ডলবি ভিশন ৪,০০০ নিট ব্রাইটনেস জেনারেট করতে পারে, কিন্তু ডলবি বলছে, তারা ফিউচারে আরো উন্নতি আনবে এতে আর কমপক্ষে তখন ১০,০০০ নিট পর্যন্ত ব্রাইটনেস পাওয়া সম্ভব হবে। যদিও বর্তমান টিভি ডিসপ্লে প্যানেল গুলো এতোটা ব্রাইটনেসের আশেপাশেও দেখাতে সক্ষম নয়, কিন্তু ভবিষ্যতে অবশ্যই সক্ষম হবে।

যদিও বর্তমানে এইচডিআর১০ কন্টেন্ট এবং টিভি উভয় ক্ষেত্রেই সর্বাধিক সমর্থিত, কিন্তু ডলবি অনেক কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে এই ট্রেন্ডকে ফিউচারে পরিবর্তন করার জন্য। ডলবি’তে বেটার কালার রেঞ্জ রয়েছে সেটাই কিন্তু একমাত্র সুবিধা নয়, এছাড়াও ডলবি’তে ডাইন্যামিক মেটাডাটা ব্যাবহারে কাজ করা হয়, অর্থাৎ এক্ষেত্রে ভিডিওতে ফ্রেম বাই ফ্রেম কন্ট্রোল থাকবে। বর্তমানে ডলবি’র ব্যবহার খানিকটা বেড়েছে, এলজি আর ভিজিও বর্তমানে ডলবি ভিশন এবং এইচডিআর১০ উভয় স্ট্যান্ডার্ডেই টিভি বাজারে আনছে। তবে জানতে পাড়লাম, খুব দ্রুত নাকি সনিও ডলবি ভিশন স্ট্যান্ডার্ডের উপর এইচডিআর টিভি বাজারে আনবে।


এখানে অবশ্যই আরোকিছু ফ্যাক্ট রয়েছে, যেমন- অবশ্যই এইচডিআর টিভির কন্টেন্টও এইচডিআর রেডি হতে হবে। সাথে অবশ্যই এইচডিআর সিগন্যালই টিভিতে প্রদান করতে হবে, যাতে টিভি সেই সিগন্যাল ডিকোড করার ক্ষমতা রাখে। বর্তমানে স্যামসাং এর নতুন “এসইউএইচডি” টিভি সিরিজে স্যামসাং আরোবেশি কালার রেঞ্জ এবং বেশি ব্রাইটনেস লেভেল যুক্ত করেছে, যেটা খানিকটা এইচডিআরের স্বাদ দিতে সক্ষম। সকল এইচডিআর টিভি’ই ৪কে রেজুলেসনের হয়, কিন্তু সকল ৪কে টিভি’তে এইচডিআর থাকে না। ১০৮০পি সিগন্যালেও এইচডিআর ইনফরমেশন পাঠানো সম্ভব, কিন্তু এইচডি টিভির সে এইচডিআর তথ্য গুলো ক্যাচ করার জন্য যথেষ্ট যন্ত্রপাতি লাগানো থাকে না। যাই হোক, এইচডিআর এর মূল উদ্দেশ্য আপনি নিশ্চয় এতোক্ষণে বুঝেই গেছেন; আরোবেশি পিক্সেল থাকার চেয়ে বেশি ভালো কথা হচ্ছে বেটার পিক্সেল তৈরি করা। —এইচডিআর টিভি সম্পর্কে যেকোনো প্রশ্নে, আমাকে নিচে কমেন্ট করে জানাতে পারেন।

ইমেজ ক্রেডিট; Shutterstock

আর্টিকেলটি ভালো লেগেছে?

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রবেশ করিয়ে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন, যাতে আমি নতুন আর্টিকেল পাবলিশ করার সাথে সাথে আপনি তা ইনবক্সে পেয়ে যান!

টেকহাবস কখনোই আপনার মেইলে স্প্যাম করবে না, এটি একটি প্রতিজ্ঞা!

Comments

  1. AWESOME ❤❤❤❤❤❤❤❤❤❤❤❤❤

    Bhai please Domain resell ei type er business er kotha niye post korun….. ❤❤❤❤

    1. ধন্যবাদ ভাই 🙂
      ভাই ডোমেইন হোস্টিং বিজনেস সম্পর্কে আপনার কি প্রশ্ন রয়েছে, বা আপনি কি জানতে চান, আমাকে ফেসবুকে ম্যাসেজ করুণ আমি আপনাকে সকল উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবো। সাথে আমার পরিচিত অনেকেই রয়েছে যারা এই ব্যবসার সাথে জড়িত, আপনি চাইলে তাদের সাথে যোগাযোগও করিয়ে দিতে পারবো। সুতরাং চিন্তা করার কিছুই নেই, যতোক্ষণ আমি আছি 🙂

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *