প্রযুক্তির জটিল টার্মগুলো কি আপনাকে বিভ্রান্ত করছে? কিছুতেই কি আপনার মস্তিষ্কে পাল্লা পড়ছে না? তাহলে বন্ধু, আপনি এবার সঠিক জায়গায় এসেছেন—কেনোনা এখানে আমি প্রযুক্তির সকল জটিল বিষয় গুলো ভাঙ্গিয়ে সহজ পানির মতো উপস্থাপন করার চেষ্টা করি, যাতে সকলে সহজেই সকল টেক টার্ম গুলো বুঝতে পারে।

ন্টারটেইনমেন্ট আমাদের প্রচণ্ড আনন্দিত করে, মুড পরিবর্তন করে দেয়, কাজের ফোকাস বাড়িয়ে দেয়। ডিএলএনএ (ডিজিটাল লিভিং নেটওয়ার্ক অ্যালায়েন্স) (DLNA: Digital Living Network Alliance) এমন চারটি শব্দ যেটা হোম এন্টারটেইনমেন্ট’কে স্বর্গে পরিনত করতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। এটি মূলত একটি পদ্ধতি বা ব্যবস্থা, যার মাধ্যমে মাল্টিমিডিয়া ডিভাইজ গুলো লোকাল নেটওয়ার্কের মাধ্যমে একে অপরের সাথে কানেক্ট হয়ে কাজ করতে পারে। আরেকভাবে বলতে পারেন এটি একটি স্ট্যান্ডার্ড এবং গাইডলাইন; হোম নেটওয়ার্ক মিডিয়া ডিভাইজ, সাথে অনেক পিসি, স্মার্টফোন, ট্যাবলেট, স্মার্ট টিভি, ব্লুরে প্লেয়ার, এবং নেটওয়ার্ক মিডিয়া প্লেয়ারে এই স্ট্যান্ডার্ড দেখতে পাওয়া যায়।

ধরুন আপনার টিভি এবং আপনার স্মার্টফোন আপনার হোম নেটওয়ার্কের সাথে কানেক্টেড রয়েছে আর উভয়ই ডিএলএনএ সার্টিফাইড, তো আপনি স্মার্টফোন থেকে টিভি’তে অডিও, ভিডিও, ফটো ইত্যাদি সেন্ড করতে পারবেন। যদি আপনার পিসিও ডিএলএনএ সার্টিফাইড হয়, তবে টিভি থেকে পিসি’র মুভি, ভিডিও, ফটো গুলো অ্যাক্সেস করতে এবং প্লে করতে পারবেন। ধরুন আপনার ডিজিটাল ক্যামেরাও এই ফিচারের অন্তর্ভুক্ত, তো নেটওয়ার্কে থাকা সকল ডিভাইজ, মানে ফোন থেকে ক্যামেরার ফটো বা টিভি থেকে ফটো শো করানো যাবে। তো এই হচ্ছে ডিজিটাল লিভিং নেটওয়ার্ক অ্যালায়েন্স সিস্টেমের মূল মন্ত্র!

ডিএলএনএ

ডিএলএনএ

সূচনা থেকেই আপনার হয়তো মোটামুটি ধারণা হয়ে গিয়েছে, এই সিস্টেম সম্পর্কে। প্রকৃতপক্ষে কিন্তু এটি একটি ট্রেড গ্রুপের নাম যেটাকে সনি তৈরি করেছে, এবং বিভিন্ন ডিভাইজকে সার্টিফিকেট প্রদান করে। যেমনটা আগেই বলেছি, পিসি, স্মার্টফোন, ট্যাবলেট, স্পীকার, হোম থিয়েটার সিস্টেম, স্টোরেজ ডিভাইজ, এমনকি কোন সফটওয়্যারও পর্যন্ত ডিএলএনএ সমর্থিত হতে পারে, যেমন- উইন্ডোজ মিডিয়া প্লেয়ার ডিএলএনএ সমর্থন করে অর্থাৎ এটি নেটওয়ার্কে থাকা সার্টিফাইড ডিভাইজ গুলোর সাথে কমিউনিকেট করতে পারে।

হোম এন্টারটেইনমেন্ট সিস্টেমে পূর্বে নতুন ডিভাইজ অ্যাড করা এবং তাদের মধ্যে ইন্টারকানেক্ট করা অনেক ঝামেলার ব্যাপার ছিল। যদিও আইপি অ্যাড্রেসের সাহায্যে একটি ডিভাইজ থেকে আরেকটি ডিভাইজকে চেনা যেতো, কিন্তু তারপরেও এটি অনেক বিভ্রান্তিকর ব্যাপার ছিল। সৌভাগ্যবসত ডিজিটাল লিভিং নেটওয়ার্ক অ্যালায়েন্স স্ট্যান্ডার্ড এই সমস্যাকে সমাধান করেছে। যেহেতু শুধু স্ট্যান্ডার্ড সার্টিফাইড ডিভাইজ হলেই কাজ করে, সুতরাং কোন ডিভাইজ কোন কোম্পানির সেটা কোন ব্যাপার না, এই স্ট্যান্ডার্ড সার্টিফাইড হলেই সেটা যেকোনো কোম্পানির ডিভাইজের সাথে কাজ করবে।

ডিএলএনএ স্ট্যান্ডার্ড সমর্থিত ডিভাইজ গুলো একই প্রোটোকলের উপর কাজ করে, এজন্য সহজেই একে অপরের সাথে কানেক্টেড হতে পারে। আজকের দিনে বহু ডিভাইজ এই স্ট্যান্ডার্ডকে সমর্থন করে। প্লে স্টেশন ৩, এক্সবক্স ৩৬০, এক্সবক্স ওয়ান সবাই আরামে এই স্ট্যান্ডার্ডকে সমর্থন করে। উইন্ডোজ মিডিয়া প্লেয়ার, এক্সবিএমসি, প্লেক্স, এবং আরো অনেক মিডিয়া সফটওয়্যার সাথে এই স্ট্যান্ডার্ড এনাবল এনএএস ডিভাইজও কিনতে পাওয়া যায়।

ডিএলএনএ সার্টিফাইড

ডিএলএনএ সার্টিফাইড

ডিএলএনএ এই জন্যই সেরা কেনোনা এতে কোন বাড়তি সেটআপ প্রসেস প্রয়োজনীয় নয়। যখন আপনি একই নেটওয়ার্কের মধ্যে এই স্ট্যান্ডার্ড সমর্থিত একাধিক ডিভাইজ কানেক্টেড করবেন, অবশ্যই একটি ডিভাইজের মেন্যুতে আরেকটি ডিভাইজ শো করবে। কোনই সেটআপ করার দরকার পড়বে না, স্ট্যান্ডার্ড সমর্থিত ডিভাইজ গুলো একে অপরকে এমনিতেই খুঁজে নেবে। সার্টিফাইড ডিভাইজ গুলোর নেটওয়ার্কে একেক জনের একেক রুল রয়েছে। কোন ডিভাইজকে মিডিয়া স্টোর করার জন্য সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়, কোন ডিভাইজকে সেই মিডিয়া প্লে করার জন্য সার্টিফিকেট প্রদান করা হয় আবার কোন ডিভাইজকে অপর ডিভাইজ গুলো কন্ট্রোল করার জন্য সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়, মূলত সব কিছুই এই স্ট্যান্ডার্ড সার্টিফাইড হওয়ার আয়োতায় পরে। এভাবে আলাদা আলাদা টাইপে ডিভাইজ সাথে আলাদা সার্টিফিকেট নেটওয়ার্ককে পরিপূর্ণ করতে সাহায্য করে।

নিচে ডিএলএনএ সার্টিফিকেট ক্যাটাগরি লিস্ট প্রদান করলাম;

ডিজিটাল মিডিয়া প্লেয়ার (ডিএমপি); — এই সার্টিফিকেটের আয়োতায় থাকা ডিভাইজ গুলো স্টোরেজ থেকে মিডিয়া স্বয়ংক্রিয়ভাবে খুঁজে পেতে এবং প্লে করতে সক্ষম হয়ে থাকে। কোন টাইপের সোর্সে মিডিয়া স্টোর থাকে, এই টাইপ সার্টিফাইড ডিভাজের কাছে তার লিস্ট থাকে। আপনি প্লেয়ার মেন্যু থেকে ফটো, ভিডিও, অডিও সিলেক্ট করে তা ইচ্ছা মতো প্লে করতে পারবেন।

ডিজিটাল মিডিয়া সার্ভার (ডিএমএস); — এই সার্টিফিকেট সেই ডিভাইজ গুলোকে দেওয়া হয়, যারা মিডিয়া ফাইল গুলোকে স্টোর করে। যেমন আপনার কম্পিউটার বা স্মার্টফোন মিডিয়া স্টোর করে রাখতে পারে অথবা নেটওয়ার্ক অ্যাট্যাচড স্টোরেজ ড্রাইভেও মিডিয়া স্টোর থাকতে পারে। মিডিয়া স্টোর করার ডিভাইজটিতে অবশ্যই ফ্ল্যাশ স্টোরেজ মানে এসএসডি, হার্ড ড্রাইভ, বা মেমোরি কার্ড লাগানো থাকবে, আর আলাদা সার্টিফিকেটের ডিভাইজ গুলো, যেমন- ডিজিটাল মিডিয়া প্লেয়ার সার্ভারের সাথে কানেক্ট হয়ে মিডিয়া প্লে করতে পারবে।

ডিজিটাল মিডিয়া রেন্ডারার (ডিএমআর); — ডিজিটাল মিডিয়া রেন্ডারার অনেকটা ডিজিটাল মিডিয়া প্লেয়ারের মতোই কিন্তু এছাড়াও এতে ডিজিটাল মিডিয়া কন্ট্রোলার সার্টিফিকেটও থাকে। অর্থাৎ মিডিয়া সার্ভার থেকে মিডিয়া স্ট্রিম করা ছাড়াও এতে এক্সটারনাল কন্ট্রোল রয়েছে।

ডিজিটাল মিডিয়া কন্ট্রোলার (ডিএমসি); — এই ক্যাটেগরি সার্টিফিকেট পাওয়া ডিভাইজ গুলো আলাদা ডিভাইজ গুলোর মধ্যে যায় এবং ডিজিটাল মিডিয়া সার্ভার থেকে মিডিয়া ফাইল মিডিয়া রেন্ডারারে পাঠিয়ে দেয়। স্মার্টফোন, ট্যাবলেট, কম্পিউটার, ক্যামকোর্ডার ইত্যাদি ডিভাইজ গুলো মিডিয়া কন্ট্রোলার হিসেবে সার্টিফাইড হয়ে থাকে।

ডিএলএনএ সার্টিফিকেশন বোঝার মাধ্যমে আপনি বুঝতে পারবেন, আপনার নেটওয়ার্কে কানেক্টেড থাকা ডিভাইজ গুলো দিয়ে আপনি ঠিক কি কি করতে পারবেন। আপনার কাছে একটি স্মার্টফোন রয়েছে এবং টিভি, অর্থাৎ আপনি নেটওয়ার্কে কানেক্ট হয়ে স্মার্টফোন থেকে যেকোনো ভিডিও, মুভি, অডিও, পিকচার শো করাতে পারবেন, কোন প্রকারের আলাদা সেটআপ না করেই।

তবে বর্তমানে হোম এন্টারটেইনমেন্ট প্ল্যাটফর্ম বেছে নেওয়া অনেকটা কনফিউজিং ব্যাপার, কেনোনা ডিএলএনএ এর আরেক প্রতিদ্বন্দ্বী হচ্ছে এয়ারপ্লে (AirPlay), যেখানে ডিএলএনএ হাজারো ডিভাইজ সমর্থন করে, সেখানে কেবল মাত্র অ্যাপেল আর অ্যাপেল সার্টিফাইড ডিভাইজ গুলোতে এয়ারপ্লে রয়েছে। মানে অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইজ থেকে অ্যাপেল টিভি’তে একই নেটওয়ার্কে কিছু প্লে করা ঝামেলা, যদিও অনেক সফটওয়্যার এখন দুই স্ট্যান্ডার্ডের মধ্যে কথা বলাতে সাহায্য করে, কিন্তু ডিফল্টভাবে এই দুইজন কথা বলতে পারে না, এরা আলাদা প্রোটোকলে কাজ করে।


এখন প্রশ্ন হচ্ছে, ডিএলএনএ আজকের দিনে কতোটা প্রয়োজনীয় ব্যাপার? কেনোনা আজকের দিনে অনেক কমই লোকাল নেটওয়ার্ক ব্যবহার করা হয়, আজকের সকল ডিভাইজ গুলো ইন্টারনেটের সাহায্যে কাজ করে। টিভিতে আপনি ভিডিও শেয়ারিং বা ভিডিও স্ট্রিমিং সাইট থেকে ভিডিও প্লে করতে পারবেন। স্মার্টফোনে জাস্ট ফাটাফাটি ভাবে অনলাইন কনটেন্ট প্লে করতে পারবেন। কিন্তু ডিএলএনএ এখনো অনলাইন স্ট্রিমিং সাপোর্ট করে না, যেটা এই স্ট্যান্ডার্ডকে খানিকতা পিছে ফেলে দেয়!

ইমেজ ক্রেডিট; Shutterstock

আর্টিকেলটি ভালো লেগেছে?

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রবেশ করিয়ে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন, যাতে আমি নতুন আর্টিকেল পাবলিশ করার সাথে সাথে আপনি তা ইনবক্সে পেয়ে যান!

টেকহাবস কখনোই আপনার মেইলে স্প্যাম করবে না, এটি একটি প্রতিজ্ঞা!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *