দি সিকিউরিটি আর প্রাইভেসির কথা চিন্তা করা হয়, অবশ্যই ইন্টারনেট একটি ভয়াবহ জায়গা। সাইবার ক্রাইম, অজানা র‍্যান্ডম সাইবার অ্যাটাক, র‍্যানসমওয়্যারে কম্পিউটার আক্রান্ত করানো, লাখো টাইপের অনলাইন ম্যালওয়্যার, ফেক ভাইরাল নিউজ —ইত্যাদি সহ আরো লাখো কোটি হুমকির বিষয় দিয়ে ইন্টারনেট পরিপূর্ণ হচ্ছে প্রতিনিয়ত। হতে পারে আপনি শেষমেশ সিদ্ধান্ত গ্রহন করেছেন, ইন্টারনেট থেকে নিজের অস্তিত্ব মুছে ফেলবেন, সৌভাগ্যবসত এটা অসম্ভব কোন ব্যাপার নয়, এই আর্টিকেলে দেখানো পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করে আপনি সহজেই নিজেকে নেট থেকে মুছে ফেলতে পাড়বেন।

অনলাইন অ্যাকাউন্ট গুলো মুছে ফেলুন

আপনি যদি মুটামুটি সময় ধরে অনলাইন ভিজিট করে থাকেন, তো আমার আন্দাজ ভুল না হলে, নিশ্চয় আপনার অগুনতি অনলাইন অ্যাকাউন্ট রয়েছে। অনলাইনে আপনার পরিচয় খোলাসা করতে সবচাইতে বেশি সাহায্য করে আপনার সোশ্যাল নেটওয়ার্ক আইডি যেমন- ফেসবুক, টুইটার, ইউটিউব, গুগল ইত্যাদি আইডি। শুধু সোশ্যাল আইডি নয়, হতে পারে আপনার বহুত পাবলিক অ্যাকাউন্টও রয়েছে, আপনার গুগল ব্লগার বা ওয়ার্ডপ্রেসে ব্লগও রয়েছে হয়তো। আবার হতে পারে আপনি কোন অনলাইন শপিং সাইটে অ্যাকাউন্ট করে রেখেছেন, তারা আপনার প্রোফাইল বা আপনার টিউমেন্ট পাবলিক করে রেখেছে হয়তো।

এই এই অ্যাকাউন্ট গুলো থেকে মুক্তি পেতে আর অনলাইনে আপনার অস্তিত্ব ডিলিট করার  জন্য অবশ্যই আপনাকে এই অ্যাকাউন্ট গুলো মুছে ফেলতে হবে। কিন্তু এক এক করে কিভাবে এই অ্যাকাউন্ট গুলো মুছবেন? হতে পারে অর্ধেকের বেশি অ্যাকাউন্ট সম্পর্কে আপনি ভুলেই গেছেন অলরেডি, হতে পারে আপনি অনেক ওয়েবসাইটের নামই ভুলে গেছেন, যেখানে আপনার অ্যাকাউন্ট করা ছিল।

যাই হোক, অন্তত যদি আপনার ঐ অ্যাকাউন্ট গুলো মনে থাকে, তো প্রত্যেকটি সাইটে যান এবং ম্যানুয়ালি অ্যাকাউন্ট গুলোকে রিমুভ করে দিন। যদি কোন সাইটের অ্যাকাউন্ট রিমুভ করতে সমস্যা হয়, গুগল করুণ “How To Remove Account From SITENAME.COM” —সার্চ করার পরে আপনি অবশ্যই এমন কিছু নির্দেশনা পেয়ে যাবেন, যার মাধ্যমে ঐ সাইট’টি থেকে নিজের অ্যাকাউন্টকে ডিলিট করতে পারবেন।

অ্যাকাউন্ট মুছে ফেলার সার্ভিস

অনেক অনলাইন সার্ভিস রয়েছে যেমন ডিলিটমি —আপনার সকল ডাটা গুলোকে অনলাইন থেকে রিমুভ করতে আপনাকে সাহায্য করবে, এরা পেইড সার্ভিস প্রদান করে থাকে, যদি আপনার গোপনীয়তা সত্যিই অনেক মূল্য রাখে আপনার জন্য, তো আমি রেকোমেন্ড করবো এদের সার্ভিস গ্রহন করতে। তাছাড়া অনলাইনে আরো ফ্রী সার্ভিসও রয়েছে, যারা আপনার অনলাইন অস্তিত্ব মুছে দিতে আপনাকে সাহায্য করে। যেমন- ডিসীটমি —এখানে আপনার ইমেইল অ্যাকাউন্টের সাথে সাইটি’কে অথন্টিকেট করতে হবে, সাইট’টির ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন ঐ মেইলের সাথে যুক্ত থাকা সকল অ্যাকাউন্ট গুলোকে খুঁজে বেড় করবে এবং আপনি চাইলে সেই অ্যাকাউন্ট গুলোকে ডিলিট করে ফেলতে পারবেন।

ইন্টারনেট থেকে নিজের অস্তিত্ব কিভাবে মুছে ফেলবেন?

তবে এই ডিসীটমি ওয়েবসাইট’টি অনেকটা লিমিটেড, এখানে শুধু জিমেইল আর হটমেইল দ্বারা সাইনআপ করা সকল অনলাইন অ্যাকাউন্ট গুলো রিমুভ করা যায়। কিন্তু আপনি যদি ইয়াহু মেইল ব্যবহার করে কোন অ্যাকাউন্ট তৈরি করে থাকেন, সেক্ষেত্রে আপনাকে ঐ অ্যাকাউন্টে ম্যানুয়ালি প্রবেশ করে অ্যাকাউন্ট’টি ডিলিট করতে হবে।

পার্সোনাল তথ্য গুলো মুছে ফেলুন

বন্ধু হতে পারে, আপনি কোন সাইটে প্রবেশ করে সেখানে আপনার অনেক পার্সোনাল ইনফরমেশন শেয়ার করেছেন, হতে পারে আপনার পার্সোনাল ফোন নাম্বার, ন্যাশনাল আইডি নাম্বার, বার্থডেট ইত্যাদি। এখন ধরুন ওয়েবসাইট’টি ডাটা রিমুভ করার কোন অপশন রাখেনি, সেক্ষেত্রে আপনি গুগলের কাছে লিগ্যাল রিকোয়েস্ট সেন্ড করতে পারেন ডাটা গুলো রিমুভ করার জন্য। এই রিমুভাল প্রসেসে কিছুটা সময় লাগতে পারে, তাই আপনাকে ধৈর্য ধারণ করতে হবে, সাথে এতে যে আপনার ডাটা গুলো রিমুভ করায় হতে এতে কোন নিশ্চয়তা নেই। তবে অ্যাটলিস্ট আপনার ট্রায় করে দেখা প্রয়োজন।

সার্চ রেজাল্ট থেকে নিজেকে মুছুন

এবার ধরুন আপনি সকল অনলাইন অ্যাকাউন্ট গুলোকে ডিলিট করে দিয়েছেন এবং সকল ওয়েবসাইটে পাবলিক ডাটা গুলোকেও ডিলিট করে দিয়েছেন। কিন্তু হতে পারে তারপরেও সেগুলো গুগল সার্চ রেজাল্টে এখনো শো করছে। গুগল অনেক ডাটা’কে অনেক ওয়েবপেজ’কে তাদের ক্যাশ সার্ভারে ক্যাশ করে রাখে। তাছাড়া সার্চ রেজাল্টের ডিস্ক্রিপশন থেকেও অনেক তথ্য খুঁজে পাওয়া সম্ভব। পুরাতন সার্চ রেজাল্ট গুলোকে মুছে ফেলার জন্য সকল তথ্য গুলোকে আপনি এখানে পেয়ে যাবেন, আর বিং রেজাল্ট মুছে ফেলার জন্য এখানে দেখুন। এখানেও কোন নিশ্চয়তা নেই, যে গুগল আপনার ক্যাশকে মুছেই ফেলবে, কিন্তু অন্তত আপনার চেষ্টা করা প্রয়োজনীয়!

মেইল অ্যাড্রেস মুছুন

এবার সর্বশেষ স্টেপটি হচ্ছে আপনার মেইল অ্যাড্রেসটিকে ডিলিট করে দেওয়া। আপনি কোন প্রভাইডারের কাছ থেকে মেইল নিয়েছেন সেটার উপর নির্ভর করে আপনার মেইল অ্যাকাউন্ট ডিলিট প্রসেসটি আলাদা হতে পারে। আপনার অ্যাকাউন্ট সাইন ইন করে অ্যাকাউন্ট ডিলিট বা ডি-অ্যাক্টিভ করার অপশন খুঁজে বেড় করুণ। অথবা কিভাবে আপনার ইমেইল ডিলিট করবেন তার জন্য গুগল করে দেখতে পারেন। তবে হ্যাঁ, আগের স্টেপ গুলো সম্পূর্ণ শেষ করার আগে ইমেইল অ্যাড্রেস ডিলিট করবেন না। কেনোনা আলাদা অনলাইন অ্যাকাউন্ট গুলো ডিলিট করার সময় আপনার ইমেইল অ্যাড্রেসটি প্রয়োজনীয় হবে।

অনলাইন থেকে নিজের অস্তিত্ব ডিলিট করা সম্ভব আর উপরের স্টেপ গুলো এই কথাটি’কে প্রমানিত করে। তবে মাথা ঠাণ্ডা রেখে স্টেপ গুলো অনুসরণ করতে হবে এবং মনে রাখবেন কিছু প্রসেসে কিছুটা সময় লাগতে পারে। আর হ্যাঁ, আরেকটি কথা, এটা আপনাকে মেনে নিতেই হবে কিছু কিছু জিনিষ কিছু কিছু জায়গা থেকে কখনোই ডিলিট করা সম্ভব নয়।

আপনি একবার ইন্টারনেটে আপনার তথ্য প্রবেশ করানোর পরে কখনোই ১০০% তথ্য বা তথ্যের সিঙ্গেল পিচ রিমুভ করতে সক্ষম হবেন না। তবে হ্যাঁ, অনেকখানি ডাটা রিমুভ করে ফেলা সম্ভব। আশা করছি আর্টিকেলটি আপনার জন্য উপকারি ছিল এবং আপনি সকল প্রয়োজনীয় তথ্য গুলো সম্পর্কে জানলেন। যেকোনো প্রশ্ন বা সাহায্যের জন্য আমাকে নিচে কমেন্ট করতে পারেন।

ইমেজ ক্রেডিট; By Pepsco Studio Via Shutterstock | Pixabay.Com

Posted by তাহমিদ বোরহান

প্রযুক্তির জটিল টার্মগুলো কি আপনাকে বিভ্রান্ত করছে? কিছুতেই কি আপনার মস্তিষ্কে পাল্লা পড়ছে না? তাহলে বন্ধু, আপনি এবার সঠিক জায়গায় এসেছেন—কেনোনা এখানে আমি প্রযুক্তির সকল জটিল বিষয় গুলো ভাঙ্গিয়ে সহজ পানির মতো উপস্থাপন করার চেষ্টা করি, যাতে সকলে সহজেই সকল টেক টার্ম গুলো বুঝতে পারে।

3 Comments

  1. তাহমিদ বোরহান ভাইয়া অসাধারণ পোষ্ট। আমার খুব ভালো লেগেছে। কৃটিক্যাল বিষয় জানলাম এবং এর সমাধানও খুব সহজভাবে উপস্থাপনা করে বুঝিয়ে দিয়েছেন। খুশি হলাম। ধন্যবাদ ভাইয়া।

    Reply

    1. আপনাকেও অসংখ্য ধন্যবাদ ভাই!

      Reply

  2. তুলনা হয় না………………!!!

    Reply

Leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *